গ্রিন টি অপকারিতা কোন গ্রিন টি ভালো গ্রিন টি খাওয়ার সঠিক নিয়ম গ্রিন টি কিভাবে খেতে হয় ওজন কমাতে গ্রিন টি খাওয়ার নিয়ম গ্রিন টি তৈরি করার নিয়ম গ্রিন টি উপকারিতা কি ভালো মানের গ্রিন টি, গ্রিন টি – উপকারি নাকি বিপজ্জনক?, Greeniculture
সকালবেলায় আজকাল দেখা যায় ঘন দুধ চা এর ধোঁয়া ছাড়া অনেকেরই ঘুম কাটতেই চায় না। মূলত চা এক বেলা না হলেই দিনটাই ক্লান্তিময় হয়ে উঠে। কিন্তু যারা এনার্জি পাওয়ার জন্য চা খেতে ব্যস্ত তারা কি আদৌ শরীরের এনার্জি বাড়াচ্ছে নাকি আরো ক্ষতি বয়ে আনছে নিজ অজান্তেই?
 
এনার্জি যদি পেতেই চান আর শরীরে চাঙ্গাভাব নিয়ে আসতে একটা স্বাস্থ্যকর পানীয় হিসেবে গ্রিন টি প্রাধান্য পাওয়া উচিত।
 
গ্রিন টি হল পৃথিবীতে পরিচিত প্রাচীনতম ভেষজ চা, যা জনপ্রিয়তা পেয়েছে চীনে আবিষ্কারের প্রায় ৪০০০ বছরেরও বেশি সময় পরে।
 
এটি বাজারে স্বল্পতম প্রক্রিয়াজাতকরণ চা, নিয়মিত খাওয়া হলে দীর্ঘমেয়াদী স্বাস্থ্য ভালো রাখে। গ্রিন টি মূলত চীনা ও ভারতীয় ঔষধ হিসেবে যেকোনও অসুস্থতা নিরাময়ের জন্য ব্যবহৃত হত। এরপরে বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে।
 
শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস, ক্যাফিন এবং পুষ্টি সমন্বিত যা আপনার সত্যিকারের সুস্বাস্থ্য এনে দিতে সত্যই মূল্য দেয়।
 
 

আপনার পানীয় তালিকায় গ্রীন টি অন্তর্ভুক্ত করার সুবিধা কী কী?

ওজন কমাতে সাহায্য করে

ক্যাফিন, অ্যামিনো অ্যাসিড এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলির দুর্দান্ত উত্সের কারণে গ্রিন টি আপনার বিপাক ক্রিয়াকে বাড়িয়ে তোলে।
 
আপনার বিপাক ক্রিয়াকে উত্সাহিত করার মাধ্যমে আপনি একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আরও বেশি শক্তি ব্যয় করে আপনার শারীরিক কর্মক্ষমতা বাড়াতে সক্ষম হন। গ্রিন টি শারীরিক পরিশ্রম ৫% পর্যন্ত বৃদ্ধি করার পাশাপাশি ফ্যাট বার্ন ১৮% পর্যন্ত উন্নত করতে সাহায্য করে। ফলে আপনার ওজন কমাতে সাহায্য করে।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

গ্রিন টি এ উপস্থিত অ‌্যান্টিঅক্সিডেন্ট গুলো ক্যান্সারের কোষ গুলিকে বিভাজিত হতে বাধাঁ প্রদান করে। ফলে শরীরে ক্ষতিকারক ভাইরাস দ্বারা সংক্রমণ ক্যান্সারকে দ্রুত প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।
গ্রিন টি অপকারিতা কোন গ্রিন টি ভালো গ্রিন টি খাওয়ার সঠিক নিয়ম গ্রিন টি কিভাবে খেতে হয় ওজন কমাতে গ্রিন টি খাওয়ার নিয়ম গ্রিন টি তৈরি করার নিয়ম গ্রিন টি উপকারিতা কি ভালো মানের গ্রিন টি, গ্রিন টি – উপকারি নাকি বিপজ্জনক?, Greeniculture
প্রসেসড গ্রিন টি

দাঁতের বা মুখের স্বাস্থ্য রক্ষাকারী

গ্রিন টি তে একটি রাসায়নিক অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট রয়েছে যা ‘ক্যাটচিন’ নামে পরিচিত যা দেহে প্রদাহ হ্রাস করে।
 
বিশেষত ক্যাটচিন ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে এবং লালা ক্ষারীয় পরিমাণ বৃদ্ধি করতে পরিচিত, ফলে আপনার মুখের দূর্গন্ধ দূর করে দাঁত পরিষ্কার এবং মুখে স্বাস্থ্যকর পরিবেশ তৈরি করে যেখানে রোগের বিকাশ সম্ভব হয় না।
 
গ্রিন টি মুখের ক্যাভিটিও হ্রাস করে এবং সম্প্রতি মুখের ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কমাতে দেখা গেছে।
 

গ্রিন টি আপনাকে আরও বেশি দিন বাঁচতে সহায়তা করে

গ্রিন টি ক্যান্সার এবং কার্ডিওভাসকুলার রোগের ঝুঁকি উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করে, যা প্রাকৃতিকভাবে আপনার আয়ু বৃদ্ধি করে।
 
আসলে, গ্রিন টিতে এমন অনেকগুলি স্বাস্থ্যকর সুবিধা প্রমাণিত হয়েছে যে পরিসংখ্যানগুলি মৃত্যুর হারকে প্রায় ৭০% হ্রাস করার বিস্ময়কর প্রমাণ প্রকাশ করে।
 
নিয়মিত গ্রিন টি পান করে আপনি রোগ প্রতিরোধ করতে পারছেন, হাড়, পেশী, মস্তিষ্ক এবং হৃদরোগের উন্নতি করতে পারছেন, প্রচলন উন্নতি করতে পারছেন এবং আপনার গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলিকে পুষ্টি ও সহায়তা দিতে পারছেন যা সর্বোপরি দীর্ঘায়ু জন্য প্রয়োজন।

ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়

নিয়মিত গ্রিন টি খেলে শরীরের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে অ‌্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও অ‌্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এর মাত্রা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। এসব ত্বকের যাবতীয় সমস্যার সমাধান করে ত্বককে সুস্থ রাখে।
 
এ জাতীয় শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য থাকে যা এটি ত্বকের কোষের ক্ষতি হ্রাস করে, যার ফলে ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা, গঠন এবং সামগ্রিক উপস্থিতি উন্নত করে।
 
গ্রিন টিতে ত্বকে ইউভি রশ্মির ক্ষতিকারক প্রভাব হ্রাস করার জন্য অনন্য ক্ষমতাও রয়েছে এবং যখন এটিকে প্রয়োগ করা হয় তখন আপনাকে রৌদ্রের ক্ষয়, বলিরেখা এবং বার্ধক্য থেকে রক্ষা করতে পারে। এছাড়া এটি ত্বকের ব্রন, পোরস ক্লিন করতে সাহায্য করে। গ্রিন টি ব্যাগ অনেকেই টোনার হিসেবে ব্যবহার করে থাকে যা খুবই উপকারী।
 
গ্রিন টি আপনার চোখের দৃষ্টি উন্নত কর
 
গ্রিন টি এর অবিশ্বাস্য সুবিধা পাবেন যদি এটি নিয়মিত পান করা হয়।
 
ক্যাটেচিন গ্রিন টিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি চোখের টিস্যুগুলিকে প্রবেশ করতে সক্ষম হয়, গভীরভাবে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট সমূহ প্রভাব তৈরি করে।
 
সাম্প্রতিক সমীক্ষায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে, গ্রিন টি নিয়মিত পান করার ফলে ছানি-প্ররোচিত অন্ধত্বকে হ্রাস করবে এবং স্বচ্ছ দৃষ্টিের জন্য উল্লেখযোগ্যভাবে উপযোগী।
 

গ্রিন টি কোলেস্টেরল কমায়

যখন গ্রিন টি খাওয়া হয়, এটি বৃহদান্ত্রের কোলেস্টেরল শোষণকে হ্রাস বা প্রতিরোধ করে, যার ফলে উচ্চ কোলেস্টেরল হওয়ার ঝুঁকি হ্রাস হয়।
 
গ্রিন টি স্টাডিতে দেখা গেছে যে এটির শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট হাটা বা যেকোনো চলাচলে শক্তি ব্যয়কে উন্নত করার কারণে এটি শরীরের সামগ্রিক কোলেস্টেরল কমায়। গ্রিন টি রক্তে খারাপ এবং ভাল কোলেস্টেরলের মধ্যে অনুপাত উন্নত করতে পারে, ভারসাম্য তৈরি করে।
 

গ্রিন টি আপনাকে খুশি করে

গ্রিন টিতে থাকা অ্যামিনো অ্যাসিডগুলি মস্তিস্কে ‘হ্যাপি হরমোনগুলি’ প্রকাশের জন্য পরিচিত, যা উদ্বেগ হওয়া বা নার্ভাস হওয়া রোধ করে।
 
এতে অবস্থিত ক্যাফিন ডোজ ক্লান্তি দমন করে, যা আপনার মেজাজকে উন্নত করতে পারে।
 

গ্রিন টি ব্লাড শ্যুগার লেভেলকে নিয়ন্ত্রণ করে

গ্রিন টি আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার শক্তিশালী প্রভাব ফেলে, সাধারণত খাওয়ার পরে সরাসরি রক্তে শর্করার হার কমিয়ে দেয়।
 
এটি করতে গিয়ে রক্তে শর্করার মাত্রা আরও স্থিতিশীল থাকে এবং এর ফলে আপনার শরীরকে গ্লুকোজ এবং অপ্রয়োজনীয় ফ্যাট স্টোরেজ ট্রিগার থেকে রোধ করে।
 
দীর্ঘমেয়াদী, এই সাধারণ প্রভাবটি আপনার দেহের ইনসুলিন সংবেদনশীলতা উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নত করতে পারে, যা প্রকারভেদে টাইপ ২ ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি ৪০% পর্যন্ত হ্রাস করতে পারে।

গ্রিন টি অ‌্যালার্জির সাথে লড়াই করে

গ্রিন টিতে একটি শক্তিশালী যৌগ থাকে যা অ্যান্টি-অ্যালার্জেনিক হিসাবে প্রমাণিত হয়েছে, যা অ্যালার্জির মৌসুমে খুব উপশম হতে পারে।
 
অধিকন্তু, গ্রিন টিতে উপস্থিত পলিফেনল অ্যালার্জির সাথে সম্পর্কিত অনেক লক্ষণ এবং অস্বস্তি থেকে মুক্তি দেয়।
 

গ্রিন টি আপনাকে স্মার্ট করে তোলে 

গ্রিন টিতে দুটি সিএনরজিস্টিক উপাদান রয়েছে: ক্যাফিন এবং এল-থিনাইন যা সামগ্রিক মস্তিষ্কের কার্যকারিতা উন্নত করতে একত্রে কাজ করে।
 
এতে আপনার মস্তিষ্কের নিউরনগুলিকে কম্পিত করে ফেলার জন্য ঠিক সঠিক পরিমাণে ক্যাফিন রয়েছে যা আপনার উদ্বেগের কারণ না ঘটায়, মস্তিষ্কের রাসায়নিক প্রক্রিয়াগুলিকে মুক্তি দেয় যা আপনার মেজাজ উন্নত করে, আপনার স্মৃতিশক্তি বাড়ায় এবং আপনার প্রতিক্রিয়া সময়ের সাথে গতি বাড়ায়।
 
এল-থিনাইনিন একটি অ্যামিনো অ্যাসিড যা শক্তি এবং একটি প্রাকৃতিক অ্যান্টি-উদ্বেগ প্রভাব সরবরাহ করে। গ্রিন টি পান করে আপনি আরও সজাগ, আরও স্থিতিশীল বোধ করবেন এবং সাধারণত স্বাভাবিকের চেয়ে স্মার্ট হয়ে উঠবেন।
 
 

গ্রিন টি কখন পান করা উচিত

সকালে মেটাবলিজমের মাত্রা বেশি থাকে আবার সন্ধ্যায় মেটাবলিজমের মাত্রা কমতে থাকে। তাই সকালের নাস্তার পরে আর সন্ধ্যায় এই পানীয়টি পান করা উচিত। তবে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে খাবার খাওয়ার ১ বা ২ ঘন্টা পরে গ্রীন টি পান করতে হবে।
 
ব্যায়াম করার ১/২ ঘন্টা আগে গ্রিন টি পান করা যেতে পারে।

 

গ্রিন টি খাওয়া কি বিপদজনক?

গ্রিন টি একটি স্বাস্থ্যকর পানীয় হলেও সবার জন্য স্বাস্থ্যকর নাও হতে পারে।
 
যারা গ্রিন টি খাবেন না-
 
  • গর্ভবতী নারী
  • ইনসোমনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তি
  • রক্তস্বল্পতায় ভোগা রোগী
 
পুষ্টি বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন যে, গ্রিন টি তে প্রচুর অ‌্যান্টি-অক্সিডেন্টে পরিপূর্ণ হওয়া সত্বেও তা ৩ কাপের বেশি খাওয়া ঠিক না। এর চেয়ে বেশি গ্রিন টি খেলে শরীর ডিহাইড্রেটেড হয়ে যেতে পারে।

Facebook Comments

One Reply to “গ্রিন টি – উপকারি নাকি বিপজ্জনক?”

Comments are closed.