জৈব কৃষি ব্যবস্থায় বাংলাদেশের অবস্থান ও সম্ভাবনা | Greeniculture

ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার বৃদ্ধির সাথে সাথে দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, নগরায়ন ও শিল্পায়নের সম্প্রসারণের ফলে বাংলাদেশের মেগাসিটিগুলি প্রচুর চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছে এবং এর মধ্যে অন্যতম খাদ্য সুরক্ষা। Economist ম্যাগাজিন প্রকাশিত একটি প্রবন্ধ অনুসারে বাংলাদেশ বিশ্বের শীর্ষ দশ খাদ্যশস্য উত্পাদনকারী দেশগুলির মধ্যে একটি।

খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (FAO) অনুসারে, শাকসবজি উত্পাদনে (FAO, ২০১৫) বিশ্বের বাংলাদেশের অবস্থান তৃতীয়। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (BARI) আশঙ্কা করেছে যে ফসল কাটার পর প্রযুক্তির অভাবের জন্য বিশেষত শীতকালে কোল্ডস্টোরেজের স্বল্পতার জন্য এবং আধুনিক কোল্ডস্টোরেজসম্পন্ন পরিবহন ব্যবস্থা না থাকার কারণে শতক্র ৩৫ ভাগ শাকসবজি অপচয় হয়। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে আধুনিক কৃষিব্যবস্থায় রাসায়নিক সারের অত্যধিক ব্যবহার এই প্রক্রিয়াকে সমালোচিত করা হচ্ছে। মাটির জৈব পদার্থের হ্রাস এর কম উত্পাদনশীলতার মূল কারণ, যা টেকসই কৃষির জন্য সবচেয়ে গুরুতর হুমকি হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। জৈব পদ্ধতিতে উদ্ভিদকে কৃত্রিম কীটনাশক এবং সহজেই প্রকৃতিতে পাওয়া যায় এমন সার ছাড়াই চাষ করা হয়। বাংলাদেশে বেশিরভাগ মাটিতে ১৭ গ্রাম / কেজি কম জৈব পদার্থ থাকে। জৈব পদার্থ হ্রাস পাওয়ার মাটির উর্বরতা নিয়ে কৃষকরা সমস্যায় পড়ছেন। তবে ধানের ফলন স্থবিরতার তুলনায় উত্পাদন ব্যয় বৃদ্ধির কারণে ধান চাষ বর্তমানে কৃষকদের জন্য অলাভজনক একটি উদ্যোগ বলে বিবেচিত হচ্ছে।

IFOAM এর মতে, বাংলাদেশের প্রায় ১৩৮ টি এনজিও পুনর্গঠনীয় কৃষি আন্দোলনের ফোরামের সদস্য, এর মধ্যে ৪৭ টি জৈব কৃষি চর্চায় নিযুক্ত রয়েছে, ৮৭ টি টেকসই কৃষি অনুশীলনের লক্ষ্যে কাজ করছে, এবং বাকি ৩ টি টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে এডভোকেসী, তদবির ও প্রচারণায় জড়িত রয়েছে।

কিছু ব্যতিক্রম ব্যতীত, বাংলাদেশে জৈব কৃষিকাজ এখনও পরীক্ষামূলক। বাংলাদেশের জৈব চাষের আওতাধীন মোট জমির পরিমাণ দেশটির মোট আবাদযোগ্য জমির মাত্র ২%। যা কিনা প্রতিনিধিত্ব করে ০.১৭৭ মিলিয়ন হেক্টর জমি। দেশের জৈব কৃষি পদ্ধতি জনপ্রিয়করণে শীর্ষস্থানীয় পর্যায়ে কাজ করছে প্রশিকা, যা কিনা একটি ইকোলজিকাল এগ্রিকালচারাল প্রোগ্রাম।

ডঃ কাজী ফারুক আহমেদ প্রশিকার প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান। ১৯৭৮ সাল থেকে, প্রশিকা তার গ্রামীণ সদস্যদের মধ্যে বিভিন্ন ধরণের মৌসুমী শাকসব্জী চাষে জৈব প্রক্রিয়া ব্যবস্থা অনুশীলনে উদ্বুদ্ধকরণ শুরু করে। প্রশিকার পরিবেশগত কৃষি প্রোগ্রামে প্রায় ২.২২ মিলিয়ন একর জমি জুড়ে প্রায় ০.৮ মিলিয়ন কৃষক জৈব চাষ ব্যবস্থায় জড়িত। এর মধ্যে ০.২২ মিলিয়ন কৃষক গত পাঁচ বছরে ০.০৮ মিলিয়ন একর জমিতে জৈব প্রক্রিয়ায় চাষ শুরু করে। অর্গানিক সবজি খেতে উদ্বুদ্ধ করতে এক প্রকার জৈব সবজি বিপণন প্রকল্পও চালু করেছে প্রশিকা। বর্তমানে, প্রশিকার একটি বিপণন চ্যানেল ঢাকা শহরের মিরপুর এলাকায় জনসাধারণের কাছে জৈব প্রক্রিয়ায় উৎপাদিত পণ্য বিক্রি করছে। তদুপরি, মোবাইল ভ্যানগুলি অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্স, মেগা শপ এবং বিভাগীয় স্টোর সহ কয়েকটি অঞ্চলে জৈব সবজি বিক্রি করতে ব্যবহৃত হচ্ছে।

প্রশিকা তাদের সদস্যদের দ্বারা ইকোলজিক্যাল কৃষি কর্মসূচির মাধ্যমে কৃষি জমিতে জৈব পদার্থ প্রয়োগের প্রচার করছে, এদের বেশিরভাগ নিম্ন ও প্রান্তিক কৃষক। একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে প্রশিক্ষিত সদস্যরা অপ্রশিক্ষিত প্রশিকা সদস্যদের চেয়ে বেশি জৈব সার ব্যবহার করেন।

১৯৯৭ সালে প্রশিকা দেশের তেরটি অঞ্চলে একটি গবেষণা চালিয়েছিল। তারা জৈব সারের সাধারণ উত্স হিসেবে গোবর ও পোল্ট্রি সার দিয়ে শুরু করেছিলেন। কৃষকরা যেখানে কচুরিপনা রয়েছে সেখানে মিশ্রণের সাথে এটিকে ব্যবহার করেন। কৃষকরা জৈব সার হিসাবে সরিষার খৈল ব্যবহার করতে আগ্রহী হলেও এর উচ্চ ব্যয় এবং স্বল্প প্রাপ্যতা এর প্রয়োগকে বাধা দেয়।

অন্যদিকে, ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মতে মহানগরীতে একদিনে আনুমানিক ৪,৬০০-৫,১০১০ টন বর্জ্য উৎপন্ন হয় উচ্চ জৈব উপাদান এবং উচ্চ আর্দ্রতাসহ (যথাক্রমে ওজনে প্রায় ৮০% এবং ৫০-৭০%)। ঢাকা শহরে রোগজীবাণুর প্রাদুর্ভাব, দূষিত ভূগর্ভস্থ জল এবং দুষিত বায়ুর কারণে বেশ কয়েকটি প্রতিকূল প্রভাব পড়ছে। FAOর মতে, ১৯৯২-২০০২ সালে কৃষি খাতে গোড়ে কার্বণ নির্গমন হয় ৬৬,৩৪৩ গিগাগ্রাম এবং সিন্থেটিক সার থেকে ৬৩০৮ গিগাগ্রাম। জৈব বর্জ্য ব্যবহারের মাধ্যমে গ্রিনহাউস গ্যাস মিথেন উত্পাদনের হার কমবে এবং এর অবশিষ্টাংশ জৈব পদ্ধতিতে ফসল চাষের জন্য একটি ভাল জৈব সার হতে পারে।

জৈব চাষের ধারণাটি নিম্নলিখিত প্রদত্ত নীতির উপর ভিত্তি করেঃ

· কৃষিকাজ প্রকৃতির একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ, প্রকৃতিতে মানব সৃষ্টির পূর্বে থেকেই স্বাভাবিকভাবে উদ্ভিদ জন্মাতো, প্রাণিদের খাদ্য সরবরাহ করত। প্রকৃতি এই বিশাল উদ্ভিদ সাম্রাজ্যকে লালন করে আসছে কোনোপ্রকার বাহ্যিক ইনপুট ব্যবহার না করেই বা অযৌক্তিক পরিমাণে পানি ব্যবহার না করেই।

· পুরো জৈব চাষ বা অর্গানিক ফার্মিং ব্যবস্থাটি প্রকৃতির তথ্যের উপর ভিত্তি করে। প্রকৃতি তার প্রয়োজনের জন্য মাটি খনন এবং অবক্ষয় অরতে বিশ্বাসী নয়।

· এই প্রক্রিয়াতে মাটি একটি জীবন্ত সত্তা।

· জীবিত অণুজীব যেমন জীবাণু এবং অন্যান্য জীব মাটির উর্বরতার জন্য অবদান রাখে। এদেরকে যে কোনও মূল্যে সুরক্ষিত ও লালন করতে হবে।

· মাটির সামগ্রিক পরিবেশ, অর্থাৎ মাটির কাঠামো থেকে শুরু করে মাটির আচ্ছাদন পর্যন্ত সবই গুরুত্বপূর্ণ।

বৈশিষ্ট্য

· জৈব চাষ পদ্ধতি মাটিতে জৈব পদার্থের স্তর বজায় রাখে, জৈবিক ক্রিয়াকলাপকে উত্সাহিত করে এবং সতর্কভাবে যান্ত্রিক ব্যবস্থার মাধ্যমে মাটির দীর্ঘ উর্বরতা রক্ষা করতে সহায়তা করে।

· পরোক্ষভাবে মাটিতে বন্ধু-অণুজীবের সরবরাহ করে যা দ্রবণীয় পুষ্টিকে উদ্ভিদের সঠিক বৃদ্ধি এবং বিকাশের জন্য রূপান্তর করে।

· এটি লিগিউম ব্যবস্থা ব্যবহার করে নাইট্রোজেনের সংবন্ধন এবং জৈব নাইট্রোজেন ব্যবহারকে উন্নত করে। এটি জৈব পদার্থের পুনর্ব্যবহারে সহায়তা করে যেমন গরুর গোবর সার, হাঁসমুরগির বিষ্ঠা এবং ফসলের অবশিষ্টাংশ।

· যেসব প্রাণী জৈব প্রক্রিয়ায় উৎপাদিত উদ্ভিদ খেয়ে বাঁচে, তারা অতিরিক্ত পুষ্টি পায়, স্বাস্থ্য ও প্রজনন ব্যবস্থা উন্নত করে।

· জৈব কৃষিকাজ বা অর্গানিক ফার্মিং করে বনাঞ্চল এবং প্রাকৃতিক বাসস্থান উন্নত হয়।

Facebook Comments


Ahmed Imran Halimi

Entrepreneur । Dreamer । Photographer । Visual Storyteller । Ex-Notredamian