সুইটকর্ণ বেবি কর্ণের স্বাস্থ্যগুণ বেবিকর্ণের উপকারিতা বেবিকর্ণের চাষ, মজাদার বেবি কর্ণ এর স্বাস্থ্যগুণ, ব্যবহার ও চাষপদ্ধতি, Greeniculture

বেবি কর্ণ দেখতে আঙ্গুলের মতো এবং হলুদ রঙের হয় যা খোসা ছাড়িয়ে সংগ্রহ করা হয়। একে ভুট্টার মত মনে হলেও ভূট্টা নয়। একে বেবি সুইট কর্ণও বলা হয়ে থাকে যা পরিপক্ক হওয়ার আগেই গাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়।

স্বাস্থ্য গুণাগুণ

(১) ওজন কমাতে সাহায্য করে বেবি কর্ণে ক্যালরির পরিমাণ কম থাকায় তা ডায়েটের কাজে সাহায্য করে।

(২) বেবি কর্ণে ফাইবারের পরিমাণ বেশি থাকায় এটি হজমে সাহায্য করে।

(৩) বেবি কর্ণে আয়রনের পরিমাণ বেশি থাকায় এটি এনিমিয়া বা রক্তস্বল্পতা কমাতে সাহায্য করে।

(৪) বেবি কর্ণ পরিপাকতন্ত্র ঠিক রাখতে সাহায্য করে।

(৫) বেবি কর্ণে উচ্চ পরিমাণে পুষ্টি উপাদান ছাড়াও এতে রয়েছে ফাইবার ও প্রোটিন যা শরীরে প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান ঘাটতি মিটাতে সাহায্য করে।

ব্যবহার

বেবি কর্ণ কাচা অবস্থায় সবজি হিসেবে খাওয়া যায়। এছাড়াও অন্যান্য খাদ্যের সঙ্গেও পরিবেশন করা হয়। স্যুপ, নুডুলস, সালাদের সাথে পরিবেশন করা হয়। বেবি কর্ণ পানি, লবন, চিনি, সিরকার দ্রবণে বায়ুরোধক ক্যানেও পাওয়া যায় যা মাসের পর মাস রেখে ব্যবহার করা যায়।

সুইটকর্ণ বেবি কর্ণের স্বাস্থ্যগুণ বেবিকর্ণের উপকারিতা বেবিকর্ণের চাষ, মজাদার বেবি কর্ণ এর স্বাস্থ্যগুণ, ব্যবহার ও চাষপদ্ধতি, Greeniculture

বপনের সময়

বেবি কর্ণ সারা বছর জুড়ে চাষ করা সম্ভব। তবে অক্টোবর-নভেম্বর অথবা ফেব্রুয়ারি-মার্চ ও জুলাই-আগষ্ট বীজ বপন করা সম্ভব। অতি বৃষ্টিতে বীজ পঁচে যেতে পারে ও নিম্ন তাপমাত্রায় অংকুরোদগমে সমস্যা হয় তাই এ সময় বীজ বপন না করাই উচিত।

আরও পড়ুনঃ  সাদা ভিনেগারে ১১ টি চমকপ্রদ ব্যবহার 

চাষ পদ্ধতি

  • প্রথমে একটি টিস্যু পেপার ভিজিয়ে নিতে হবে।
  • এরপর বেবি কর্ণের বীজ একটা একটা করে বিছিয়ে দিতে হবে।
  • আরো একটা টিস্যু পেপার উপরে দিয়ে আবার পানির স্প্রে করে একটা
  • প্লাস্টিকের বক্সে রেখে দিতে হবে। ৭ দিন পরে দেখা যাবে বীজ অঙ্কুরিত হয়েছে।
  • এরপর সাবধানে টিস্যু পেপার থেকে আস্তে আস্তে করে অঙ্কুরিত চারা ছাড়িয়ে নিতে হবে যাতে চারার মূল ছিড়ে না যায়। একটা প্লাস্টিকের বোতল অথবা টবে এই চারাগুলো স্থানান্তর করে আলোর মধ্যে রেখে দিতে হবে।

যত্ন আত্তি

আগাছা পরিষ্কার করতে হবে ঠিকমতো। গাছে নিয়ম করে ২ বার পানি দিতে হবে। বৃষ্টির মৌসুমে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

ফসল সংগ্রহ

সাধারণত গাছ লাগানোর ৪-৫ মাসের মধ্যে ফসল সংগ্রহ করা যায়। মোচার মাথায় নিচের দিকে যখন দেখা যায় বেবি কর্ণ ২.৫-৩.০ সেমি লম্বা হয় তখন ধারালো চাকু বা কাচি দ্বারা মোচাটি গাছ থেকে কেটে সংগ্রহ করতে হয়।