ফেলে দেওয়া বালতি দিয়েই বাগান করুন

শহরে ছাদবাগান করার জন্যে বিভিন্ন ফেলে দেওয়া জিনিসের ব্যবহার খুবই পুরনো ট্রেন্ড। নিজের বাগানে সবজি চাষ করা গেলে বাজারের কেমিক্যাল ব্যবহৃত খাবার থেকে পরিবারকে কিছুটা হলেও দূরে রাখা সম্ভব হয়।  বাগান করার জন্যে যে সবসময় প্রচুর অর্থ খরচ করে দামী দামী জিনিস কিনতে হবে, এমনটা নয়। আপনার বাড়ির ফেলে দেওয়া অনেক জিনিসই ব্যবহার করতে পারেন সবজি, ফল-মূল চাষ করার জন্যে। বাগান করার কিছু সরঞ্জাম সাথে নিয়ে পুরনো অব্যবহৃত বালতি, বোতল, পানির গ্যালন, চায়ের কাপ, পেপার কফি গ্লাস, বাক্স ইত্যাদি দিয়ে নেমে পড়তে পারেন ঘরোয়া বাগান এর কাজে।

খাদ্য গ্রেড বালতি ব্যবহার করুন 

আপনার ঘরের ভেতরের ছোট্ট পরিসরের উদ্যানের জন্য আপনি যে গ্যালন বালতি ব্যবহার করেছেন তা অবশ্যই ফুড গ্রেড কোয়ালিটির হতে হবে। বালতির প্লাস্টিকের যে কোনও রাসায়নিক অবশিষ্টাংশ গাছ শুষে নিতে পারে, এটি গাছের স্বাস্থ্য এবং ফসলে প্রভাবিত করে। সবচেয়ে নিরাপদ এবং সেরা ফলাফলের জন্য, খাদ্য গুণগত মানসম্পন্ন বালতিগুলি ব্যবহার করুন।

পানি নিষ্কাশনের জন্য আপনার বালতিগুলিতে গর্ত করুন

আপনার গাছগুলিতে ভালভাবে পানি নিষ্কাশনের প্রয়োজন, তাই আপনার বালতিটির নীচে গর্তগুলি সাবধানে ড্রিল করতে হবে। কোনও মাটি যুক্ত করার আগে আপনার বালতির নীচে কয়েক ইঞ্চি নুড়ি বা আলগা পাথর রাখুন।

পানি সঠিকভাবে দিন

অন্দর বাগানের অনেক সাধারণ সমস্যার একটি হল ভুল পদ্ধতিতে পানি দেওয়া। বেশিরভাগ গাছের জন্য আর্দ্রতা প্রয়োজন তবে কুঁচকানো মাটি নয়।

পর্যাপ্ত আলো সরবরাহ করুন

বেশিরভাগ উদ্ভিজ্জ গাছগুলিতে প্রচুর পরিমাণে আলো প্রয়োজন। বেশিরভাগ অংশে, দক্ষিণমুখী জানালায় আপনার গাছগুলিকে সর্বাধিক আলো এবং উষ্ণতা সরবরাহ করবে। কিছু শাকসবজির জন্য এটি পর্যাপ্ত পরিমাণ আলো নাও থাকতে পারে, তাই আপনাকে ফ্লুরোসেন্ট লাইট বা এলইডি বাতি সরবরাহ করা উচিত। সাদা, নীল ও লাল রঙের এলইডি লাইট দিয়ে ঘরের ভেতরেই চাষ করা সম্ভব। ছাদের নিচে সূর্যের আলোর বিকল্প হিসেবে এলইডি লাইট ব্যবহার করে ক্ষেতের সমপরিমাণ সবজি পাওয়া সম্ভব।  বিভিন্ন নার্সারী শপ বা হার্ডওয়ারের দোকানে এলইডি বাতি পেতে পারেন। এ বাতির দাম ৫০০০ থেকে শুরু।

ঘরোয়া গাছের এলঅইডি লাইট ট্রিটমেন্ট

ঘরোয়া গাছের এলঅইডি লাইট ট্রিটমেন্ট

আপনার গাছগুলিতে কতটুকু আলোর প্রয়োজন তা জানুন

টমেটো বা মটর জাতীয় কয়েকটি গাছের জন্য যেমন প্রচুর পরিমাণে সূর্যের আলো প্রয়োজন, অন্যদিকে পালংশাক এবং লেটুস এর জন্য অনেক কম আলো প্রয়োজন। মূল জাতীয় শাকসবজিতে সাধারণত বেশি পরিমাণে সূর্যের আলো প্রয়োজন হয় তবে অন্যান্য শাকসবজির জন্য অত নয়। প্রতিটি উদ্ভিদের কী প্রয়োজন তা আপনি নিশ্চিত হন। এটি নিশ্চিত হতে আপনার বীজের প্যাকেট এবং নির্দেশিকা বই থেকে গাছের তথ্য পড়ুন।

পরাগায়ন

আপনি যদি বাড়ির অভ্যন্তরে মরিচের মতো গাছগুলি বৃদ্ধি করেন তবে ফল চাষ করার জন্য আপনাকে সেগুলি নিজেই পরাগায়িত করতে হবে। পরাগায়ণ করার জন্য আপনি একটি তুলার গোলা ব্যবহার করতে পারেন। নইলে কটন বাডও ব্যবহার করতে পারেন। আর আপনি যদি স্বভাব আঁকিয়ে হন, তাহলে অবশ্যই বাসায় রঙ করার তুলি থাকতে পারে। পরিষ্কার তুলি দিয়েও পরাগায়ণ করা সম্ভব।

অতিরিক্ত শীতল স্থান থেকে সাবধান থাকুন

আপনার গাছপালা বাড়ির ভিতরে রাখার সময় সেগুলি অতিরিক্ত শীতল অংশের কাছাকাছি রাখবেন না। উদ্ভিদের উপর শীতল বাতাস বয়ে গাছটিকে  ক্ষতিগ্রস্থ করতে পারে। শীতকালে দরজার কাছাকাছি অবস্থানে এবং গ্রীষ্মে এয়ার কন্ডিশনারযুক্ত স্থানগুলো এড়িয়ে চলুন।

নিয়মিত সার দিন

উদ্ভিদেরও খাদ্য হল সার। আপনি প্রাকৃতিক কম্পোস্ট, কেঁচো সার, বাণিজ্যিক সার বা জৈব সার ব্যবহার করতে পারেন। আপনার গাছ এবং গাছের প্রয়োজন অনুসারে সার নির্বাচন করুন। জৈব সার মাটিতে খুব কম পরিমাণ পুষ্টি সরবরাহ করে, একই পরিমাণ রাসায়নিক সার অধিক পরিমাণে পুষ্টি সরবরাহ করে। অল্প রাসায়নিক সার ব্যবহার করলেই যেহেতু গাছগুলো পুষ্টি পেয়ে দ্রুত বেড়ে উঠতে পারে, সেহেতু রাসায়নিক সারই সাশ্রয়ী। অন্দর বাগানে রাসায়নিক সার ব্যবহার করাই যুক্তিযুক্ত।

নিয়মিত সার দিন

নিয়মিত সার দিন

স্বাস্থ্যকর উদ্ভিদ বা ভাল বীজ চয়ন করুন 

আপনি রঙিন এবং শক্তিশালী কান্ডযুক্ত, স্বাস্থ্যকর এমন গাছ আপনার অন্দর বাগানের জন্য  ব্যবহার করুন। ভাল অঙ্কুরোদগম হার পেতে ভাল উৎস থেকে বীজ নিয়ে ব্যবহার করুন। দূর্বল উদ্ভিদ এবং দূর্বল বীজ বাড়ির অভ্যন্তরে ভাল বাড়বে না, তাই আপনার বাগানটি স্বাস্থ্যকর সবজি চাষ নিশ্চিত করুন।

আরও পড়ুনঃ ছাদবাগানে কন্টেইনারে বছরব্যাপী চাষযোগ্য ১২ টি সবজি

সহচর উদ্ভিদ

আপনার ফেলে দেওয়া বালতিতে পর্যাপ্ত জায়গা থাকলে কয়েক জাতের শাকসবজির গাছ অনায়াসেই লাগাতে পারেন। একে সহচর উদ্ভিদ চাষ পদ্ধতি বলে। কিছু গুল্ম জাতীয় গাছের সাথে লেটুস মিশ্রিত করার চেষ্টা করুন বা পেঁয়াজের সাথে পালং শাক। এর পরিপূর্ণ গাইডলাইন পেতে গুগোল থেকে ভাল ভাল আর্টিকেল পড়তে পারেন।

পর্যবেক্ষণ ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ

ফেলে দেওয়া বালতিতে বাগান করতে নিয়মিত এক্সপেরিমেন্ট করে দেখার চেষ্টা করবেন। কোন উদ্ভিদটি সবচেয়ে ভাল বৃদ্ধি হয় তা দেখতে আপনি বিভিন্ন উদ্ভিদ গোষ্ঠীকে একসাথে গ্রুপিং করতে বা আপনার উদ্ভিদগুলিকে বিভিন্ন জানালায় সরিয়ে নিয়ে পরীক্ষা করতে পারেন। এভাবে নিজে নিজে পরীক্ষা করেও দক্ষ বাগানী হওয়া যায় খুব সহজেই।

মনে রাখবেন যে, অনেক সময় সঠিকভাবে সকল পদ্ধতিতে চাষাবাদ করার পরও গাছ মারা যেতে পারে। এক্ষেত্রে কি কি ভুল ছিল, তা খতিয়ে দেখার চেষ্টা করুন এবং খালি জায়গাটি আবার পূণর্ব্যবহার করুন। কখনোই পুরনো জিনিসপত্র ফেলে দিবেন না, বা ঘরে ফেলে রেখে জঞ্জাল বাড়াবেন না। এদেরকে প্রোডাক্টিভ কাজে ব্যবহার করুন।

Fariah Ahsan Rasha

Leave a Reply