মালবেরি বা তুঁত চাষ পদ্ধতি

তুঁত গাছের বোটানিকাল নাম  Morus alba হিসাবে  পরিচিত। তুঁত গাছের পাতা  প্রাথমিক ভাবে রেশম পোকাকে খাওানোর জন্য ব্যবহার করা হত। এটির  ঔষধি গুনাগুন সম্পর্কে বলে শেষ করা যাবেনা। তুঁতের কয়েকটা প্রধান ঔষধি ব্যবহার হল – রক্তের টোনিক তৈরি, মাথা ঘোরা, কোষ্ঠকাঠিন্য, টিনিটাস, মূত্রথলিজনিত সমস্যার সমাধান ইত্যাদিতে ব্যবহার হয়।

তুঁত ফলের জুস খুবই সুস্বাদু । জুসটি কোরিয়া, জাপান ও চায়নায় অত্যন্ত জনপ্রিয়। এটি একটি বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদ, যার গড় উচ্চতা 40-60 ফুট হয়। এর ফুলগুলি খুব নিখুঁতভাবে সাজানো। যা পরবর্তীতে বেগুনি কালো রঙের ফল দেয়।

মুলত বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে তুঁতের চাষ হয়, বিশেষ করে রাজশাহীতে বেশি চাষ হয় কারন সেখানে বাংলাদেশ রেশম চাষ উন্নয়ন বোর্ড অবস্থিত।  এছাড়াও উল্লেখযোগ্য অঞ্চল হল নাটোর।

জলবায়ু

প্রয়োজনীয় তাপমাত্রাঃ ২৪-২৮ ডিগ্রী সেলসিয়াস

প্রয়োজনীয় বৃষ্টিপাতঃ ৬০০-২৫০০ মি. মি

বীজ বপনের জন্য উপযুক্ত তাপমাত্রাঃ ৩৫-৪০ ডিগ্রী সেলসিয়াস

ফসল উত্তলনের উপযুক্ত সময়ঃ ৩৫-৪৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস

মাটির ধরণ

বিভিন্ন প্রকার মাটির ধরণে তুঁত গাছ জন্মাতে পারে। গভীর উর্বর থেকে সমতল জমিতে নিকাশী ব্যবস্থা এবং ভাল পানি ধারণ ক্ষমতা সহ বিভিন্ন জমি জন্মে। উদ্ভিদের ভাল বিকাশের জন্য মাটির ৬.২-৬.৮ থেকে পিএইচ প্রয়োজন।

জমি প্রস্তুতি

তুঁত রোপণের জন্য,  ভালভাবে প্রস্তুত মাটি প্রয়োজন। প্রথমে জমি থেকে আগাছা ও পাথর সরিয়ে ফেলতে হবে এবং মাটিকে ভাল স্তরে আনতে গভীরভাবে লাঙ্গল দিয়ে চাষ করা উচিত।

কালো তুঁত ফল বা মালবেরি

তুঁত ফল

বীজ বপন

বপনের সময়

প্রধানত জুলাই – আগস্ট মাসে তুঁত রোপণ করা হয়। গাছ লাগানোর জন্য নার্সারিকে জুন মাসে – জুলাই মাসে ভালভাবে প্রস্তুত হয়।

মধ্যবর্তী ফাঁকা স্থান

90 সেমি x 90 সেমি গাছের ব্যবধান ব্যবহার করতে হবে।

বপনের গভীরতা

গর্তে রোপণের গভীরতা 60 সেমি হওয়া উচিত।

বপনের পদ্ধতি

প্রসারণ(Propagation) পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়।

বীজের ধরণ

বীজের হার

একর প্রতি বীজের হার ব্যবহার করুন।প্রতি একরে ৪কেজি হারে বীজ বপন করতে হবে।

বীজ চিকিৎসা

প্রথমত বীজগুলি 90 দিনের জন্য ঠান্ডা জায়গায় সংরক্ষণ করুন। 90 দিনের সংরক্ষনের পর  বীজ ২ দিন পরে পানি দিয়ে প্রতিস্থাপন করে ৪ দিন পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। তারপরে বীজগুলি আর্দ্র করার জন্য কাগজের তোয়ালেতে রাখুন। যখন বীজে অঙ্কুরোদগম দেখা যায় তখন তা নার্সারী বিছানায় বপন করে ফেলুন।

আরও পড়ুনঃ আঙ্গুর চাষ এবং এর পরিচর্যা

সারের ব্যবহার

FYM সার  @ ৮ মেট্রিক টন প্রতি একরে প্রতি বছর ব্যভার করুন। দুটি সমান ভাগে বিভক্ত করুন এবং জমিতে ভালভাবে মিশ্রিত করুন। এর পাশাপাশি NPK@ ১৪৫:১০০:৬২ কেজি / একর / বছরের আকারে ভি – ১১ জাতের জন্য এবং এনপিকে @ 125: 50: 50 কেজি / একর / বর্ষ এস -৩৬ জাতের জন্য সার ডোজ প্রয়োগ করুন।

আগাছা দমন পদ্ধতি

প্রাথমিক পর্যায়ে জমিকে আগাছামুক্ত করুন। এতে করে গাছের ভাল বৃদ্ধি ও ফলন হবে। প্রথম ছয় মাসে দুটি আগাছা দমনের প্রয়োজন হয় এবং তারপরে কাটার পরে প্রতি দুই মাসের বিরতিতে এবং তারপরে 2-3 মাসের ব্যবধানের পরে  আগাছা দমন করা হয়। হাতের মাধ্যমে আগাছা নিয়ন্ত্রণে করা হয়।

mulberries

মালবেরি

সেচ পদ্ধতি

সপ্তাহে একবার @ ৮০-১২০ মিমি সেচ দিতে হবে। যখনই ওই অঞ্চলে পানির অভাব দেখা দিবে সাথে সাথে ড্রিপ পদ্ধতিতে সেচ দিবেন। এই পদ্ধতি ৪০% পানি বাঁচাতে সহায়তা করে।

রোগবালাই ও পোকা দমন

রোগ/পোকার নামউপসর্গদমনের উপায়
পাউডারি মিল্ডিউএটি ফিল্ল্যাকটিনিয়া করোলিয়া (Phyllactinia corylea) দ্বারা সৃষ্টি হয়। এই রোগের  লক্ষণগুলি হল পাতার নীচের পৃষ্ঠে সাদা পাউডারযুক্ত প্যাচ পাওয়া যায় যা সময়ের সাথে সাথে বৃদ্ধি পাবে,  তারপরে পাতা হলুদ বর্ণের হয়ে যায় এবং অকাল ঝরে পড়ে।

 গাছের নীচের তলদেশে শুকানো লাগবে এবং সালফেক্স ৮০ WP (২ জি / লি) @ 0.2% এর ফলিয়ার  স্প্রে এই রোগ নিরাময়ে সহায়তা করবে। 
লিফ রাস্টপেরিডিওস্পোরামোরির (Peridiosporamori) কারণে হয়। লক্ষণগুলি হল পাতার নীচের পৃষ্ঠে বাদামি রঙের ফোস্কা দেখা যায়   এবং পাতার উপরের পৃষ্ঠে লালচে বাদামী দাগ দেখা যায়। কিছুদিন পরে দাগগুলি হলুদ হয়ে যায় এবং পাতা শুকিয়ে যায়। মূলত এই রোগটি ফেব্রুয়ারি – মার্চ মাসে হয়।

ব্লিটক্স ৫০ WP @ ৩০০ গ্রাম বা বাভিস্টিন ৫০ WP   @ ৩০০ গ্রাম পাতার রোগ  নিরাময়ের জন্য দিতে হবে।

লিফ স্পটএটি সেরকোস্পোরোমোরিকোলা (cosporamoricola) দ্বারা তৈরি হয়। লক্ষণগুলি হল পাতার উভয় দিকে হালকা বাদামী বৃত্তাকার দাগ দেখা দেয়ও সংক্রামিত পাতাগুলি অকালে ঝরে পড়ে। মূলত এই রোগটি শীত এবং বর্ষাকালে হয়।

বাভিস্টিন @ ৩০০ গ্রাম প্রতি স্প্রে ১০ দিনের ব্যবধানে প্রয়োগ করুন ।

সুটি মোল্ডপাতার উপরের পৃষ্ঠে কালো আবরণ দেখা যায়। মূলত এই রোগটি আগস্ট – ডিসেম্বর মাসে হয়।

মনোক্রোটোফোস @ ২০০  মিলি স্প্রে করলে এর থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

ব্যাক্টেরিয়াল ব্লাইটপাতা ঝলসে যাবে। ফলে পাতার ফলনের গুণমানকে হ্রাস করে। বাভিস্টিন সলিউশন @ ৩০০ গ্রাম স্প্রে করলে  রোগ নিরাময় সম্ভব।

মূল জটা রোগএটি সিউডোমোনাস সিরিংয়ে / জ্যান্থোমোনাস ক্যাম্পেস্ট্রিস পিভি (Pseudomonas syringae/Xanthomonas campestris pv.)দ্বারা সৃষ্ট হয় ।এই রোগের লক্ষণগুলি হল পাতায়  কালো বাদামী অনিয়মিত দাগ দেখা যায়। পরবর্তীতে পাতা কুঁচকে যায়  এবং মুলে জটা হয়  ও পচন ধরে।

ছত্রাকনাশক দ্রবণ  M-45 @৩০০ গ্রাম প্রতি ১৫০- ১৮০ লিটার প্রতি মিশাতে হবে ও প্রয়োগ করতে হবে তবেই এ  রোগ নিরাময় সম্ভব।

স্টেম বোরারএটি তুঁত গাছের ছালের নীচে সুড়ঙ্গ তৈরি করে এবং অভ্যন্তরীণ টিস্যুগুলিকে খাওয়ার মাধ্যমে গাছ ধ্বংস করে। স্টেম বোরারের লার্ভার  মলমূত্র সুড়ঙ্গেরবাইরে দেখা যায়।

যদি পোকামাকড় লক্ষ্য করা যায় তবে কঠোর তারের সাহায্যে সুড়ঙ্গটি পরিষ্কার করুন এবং কেরোসিন এবং ক্লোরপিরিফোসের মিশ্রণে তুলার দলা ভাল করে ডুবিয়ে ৫০:৫০ অনুপাত অনুসারে পরিসস্কার করে সুড়ঙ্গ কাদা দিয়ে বন্ধ করুন।

বাকল খেকো ক্যাটারপিলারএগুলি কাণ্ডে অনেকগুলো সুড়ঙ্গ  তৈরি করে। ফলস্বরূপ কান্ড দুর্বল হয়ে যায় এবং জোরে বাতাস বইলে ডালপালা পড়ে যায়।

মনোক্রোটোফোসের প্রয়োগ (নুভাক্রন ৩৬ WSC) বা ১০ মিলি মিথাইল প্যারাথিয়ন (মেটাসিড)৫০ EC  ১০ লিটার পানিতে মিশিয়ে কীটপতঙ্গ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

হলুদ লাল বোলতাবোলতা গাছটিকে ভিতর থেকে ফাঁকা করে দেয়। কীটপতঙ্গ মূলত মার্চ থেকে নভেম্বর মাসে আক্রমন করে।

১০ লিটার পানিতে কার্বারিল ৫০ WP ৪৪ গ্রাম মিশিয়ে স্প্রে করলে এই কীট থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

ফসল উত্তলনের সময়কাল

যখন গাছের ফলগুলো গাড় লাল থেকে বেগুনি লাল হবে তখন তুঁত গাছের ফসল তুলতে হবে। সকালবেলা  ফসল তোলার উপযুক্ত সময়। ফসল তোলা মূলত হাতের মাধ্যমে বা কাঁপানো পদ্ধতিতে করা হয়। কাঁপানো পদ্ধতিতে গাছের নীচে সুতি বা প্লাস্টিকের শীট রেখে গাছটি কাঁপানো হয়। প্রায় সমস্ত পাকা তুঁতিতে তুলা বা প্লাস্টিকের শীটে ঝরে পড়ে যাবে। সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াজাতকরণ জন্য পাকা ফল ব্যবহার করা হয়।

আরও পড়ুনঃ ছাদ বাগানে সৌদি খেজুর চাষ

Fariah Ahsan Rasha

Leave a Reply