ছাদবাগানেই করুন গ্রীষ্মকালীন তরমুজ চাষ

অনেকেই এই যান্ত্রিক শহরের ক্লান্তি ভুলানোর জন্য কিংবা শখের বশে বাড়ির ছাদে বাগান করে থাকেন। ছাদে হরেক রকমের ফল ও সবজি চাষ করা যায়। অনেকেই ভাবতে পারেন ছাদবাগানে ছোট-খাট ফুল, সবজি ও ফলের গাছ লাগানো যায় হয়ত। শুনতে অবাক লাগলেও সত্যি বলতে ছাদে তরমুজ চাষ করা সম্ভব!

গ্রীষ্মের খুব জনপ্রিয় একটি ফল হল তরমুজ। গ্রীষ্মে আবহাওয়া খুব গরম থাকে ফলে ঘামের সাথে দেহ থেকে পানি ও খনিজ লবণ বেরিয়ে আসে যা দেহে ক্লান্তি এনে দেয়। এই ক্লান্তি ভুলাতে ও পানির অভাব পূরণ করতে এক গ্লাস তরমুজের শরবত কিংবা এক ফালি তরমুজের জুড়ি নেই। তরমুজ আছে ৯৬ ভাগ পানি যা দেহের পানির অভাব পূরণ করতে সাহায্য করে। এছাড়া ও আয়রন, ক্যালসিয়াম, কার্বহাইড্রেট, ভিটামিন ও ফসফরাস। ছাদ বাগানে তরমুজ চাষের জন্য বারোমাসী তরমুজের বীজ ব্যবহার করা হয়। তরমুজ চাষ করার উপযুক্ত সময় হচ্ছে বসন্ত কাল(ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল)।

ছাদে তরমুজ দুই উপায়ে চাষ করা সম্ভব। এবার চলুন জেনে নিই সেই উপায় গুলো কি এবং উপায় গুলোর মাধ্যমে তরমুজ চাষের আদ্যোপান্ত।

কন্টেইনার বা টবে তরমুজ চাষ করার পদ্ধতি

পাত্রেও করতে পারবেন খুব সহজেই

জায়গা নির্বাচন

প্রথমেই তরমুজ চাষের জন্য উপযোগী জায়গা নির্ধারণ করতে হবে। এমন একটি জায়গা বেছে নিতে হবে আদ্রর্তা পরিমিত পরিমাণে আছে এবং অনেক আলো বাতাসের চলাচল আছে।

কন্টেইনার বা টবে তরমুজ চাষ করার পদ্ধতি

ক) বড় আকারের কন্টেইনার নিন, যদি প্লাস্টিকের কন্টেইনার হয় তবে কন্টেইনারে কয়েকটি ছোট ছিদ্র করে নিতে হবে যাতে অতিরিক্ত পানি নিস্কাশনের সুযোগ থাকে।

খ) মাটি হিসেবে উর্বর দোআঁশ বা বেলে দোআঁশ মাটি নিন।

গ) মাটিকে চাষের উপযোগী করতে প্রচুর পরিমাণে জৈব সার প্রয়োগ করতে হবে।একভাগ মাটি নিলে তার সাথে এক ভাগ জৈব সার মিশিয়ে নিন এবং মাটি কে ভালভাবে ঝরঝরে করে মিশিয়ে নিন। যদি মাটি শুকনো থাকে তবে অল্প পরিমাণে পানি নিয়ে ভিজিয়ে মিশিয়ে নিন।

ঘ) জৈব সার প্রস্তুতিতে পশুপাখির উচ্ছিষ্ট, খড়কুটো ব্যবহার করা যেতে পারে।

ঙ) বীজ প্রস্তুতির জন্য শীতকালে ১২ ঘন্টা পর্যন্ত বীজ পানিতে ভিজিয়ে এরপর রোপণ করতে হবে। ফেব্রুয়ারির শুরুর দিনগুলো বীজ রোপণ করার উপযুক্ত সময়।

চ) মাটির পিএইচ লেভেল ৬-৬.৮ এর মধ্যে রাখতে হবে।

ছ) টবে চাষ করতে হলে মাঝারি আকারের টব নিলেই হবে। একটি মাঝারি আকারের টবে ৪ টি গাছ লাগানো যায়।

জ) প্রতিদিন গাছে প্রচুর পরিমাণে পানি দিতে হবে কারণ তরমুজ গাছ বৃদ্ধিতে প্রচুর পরিমাণে পানির দরকার হয়। যখনই গাছে ফল আসবে ও পূর্নাঙ্গ গড়ন হবে পানি দেওয়া কমিয়ে আনতে হবে।

ঝ) ভাল ফলন পেতে চাইলে শুধুমাত্র প্রধান লতা বড় হতে দিতে হবে। আগাছা ও অন্যান্য শাখাপ্রশাখা ছেঁটে দিন।

হাইড্রোপনিক উপায়ে মাটি ছাড়া শুধুমাত্র পানিতেই তরমুজ চাষ করা সম্ভব। বিস্ময়কর হলেও সত্যি যে, এই পদ্ধতিতে তরমুজের ফলন খুবই ভালো হয়। গাছ দ্রুত বড় হয় কারণ মূল পানি থেকে সরাসরি পুষ্টি উপাদান গুলো গ্রহণ করতে পারে। তরমুজ চাষ করার জন্য হাইড্রোপনিক একটি সময়োপযোগী পদ্ধতি।

প্রস্তুত প্রণালী

ছাদে তরমুজের চাষ

প্রস্তুত প্রণালী

ক) হাইড্রোপনিক মিশ্রন তৈরি করতে ১ চা চামচ ইপসম লবণ ও ২ চা চামচ পানিতে মিশে যায় এমন ধরনের সার নিতে হবে।১ গ্যালন পানিতে এগুলো ভালো করে মিশিয়ে নিন। এরপর একটি বড় প্লাস্টিকের পাত্র এ ঢেলে নিন। মিশ্রনের পিএইচ লেভেল ৫.৫-৬.৫ এর মধ্যে রাখতে হবে।

খ) এই পদ্ধতিতে যেহেতু মাটি ব্যবহার করা হয় না সেহেতু গাছের মূলকে সঠিক ভাবে রাখতে কিছু নিস্ক্রিয় মাধ্যম যেমন:পারলাইট(মার্বেল পাথরের টুকরো), রকউল, মাটির বড়ি, পিট শৈবাল, ভার্মিকুলেট ইত্যাদি ব্যবহার করা হয়।

গ) জালি দিয়ে ভাল করে গাছটি জড়িয়ে দিতে হবে।

ঘ) মটরের সাহায্যে পরিচালনা করতে হবে এবং প্রতিদিন পর্যবেক্ষণ করতে হবে।

ঙ) হাইড্রপনিক মিশ্রনটি প্রতি দুই/তিন সপ্তাহ পর পর নিস্কাশনের মাধ্যমে বদলাতে হবে।

চ) মিশ্রনে অতিরিক্ত খনিজ তৈরি হয়ে গাছ যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

ছাদবাগান যেমন দেহ ও মন সতেজ ভাব নিয়ে আসে তেমনি পরিবেশ ঠান্ডা ও দূষণ মুক্ত রাখতে সাহায্য করে। ছাদ বাগান এ তরমুজ চাষ করে আমরা তাজা ও ভেজালমুক্ত তরমুজ পেতে পারি। তাই দেরি না করে আজই ছাদে তরমুজ চাষ শুরু করুন!

নবীন কৃষি লেখিকা ফারিয়াহ আহসান এর আরও লেখা পড়ুনঃ

আমের হপার পোকার আক্রমণের প্রতিকার

Fariah Ahsan Rasha