NPK সারঃ এটি কি এবং কিভাবে কাজ করে? | Greeniculture

NPK সার হল একটি জটিল সার যা মূলত উদ্ভিদ বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় তিনটি প্রাথমিক পুষ্টি উপাদানের সমন্বয়ে গঠিত। কৃষি বিশ্বব্যাপী খাদ্য সরবরাহ মেটাতে এবং স্বাস্থ্যকর ফসল নিশ্চিত করতে NPK সারের ব্যবহারের উপর প্রচুর নির্ভরশীল। খনিজ সার ব্যবহারে খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধির ফলে বিশ্বের প্রায় অর্ধেক লোক এখনো বেঁচে রয়েছে।

NPK সারঃ উপাদানসমূহ

উদ্ভিদের অসংখ্য বিল্ডিং ব্লক রয়েছে যা এর স্বাস্থ্যকর এবং সঠিক বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজন। এই পুষ্টিগুলি ব্যতীত, গাছপালা তাদের সম্ভাবনাময় বৃদ্ধি করতে পারে না, ফলে কম ফলন সরবরাহ করে এবং খুব দ্রুত রোগাক্রান্ত হয়ে পড়ে।

তিনটি গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদান রয়েছে, যার মধ্যে কোনো একটি ব্যাতীতও উদ্ভিদ টিকে থাকতে পারে না, তাদের প্রাথমিক ম্যাক্রোনিউট্রিয়েন্টস বা অত্যাবশ্যকীয় পুষ্টি উপাদান হিসাবে উল্লেখ করা হয়ঃ এর যথাক্রমে নাইট্রোজেন (এন), ফসফরাস (পি) এবং পটাশিয়াম (কে)।

প্রায়শই প্রাকৃতিকভাবে বা অতিরিক্ত চাষ বা অন্যান্য পরিবেশগত কারণে মাটিতে এই পুষ্টিগুলির অভাব দেখা দিতে পারে। মাটিতে যেটির অভাব রয়েছে, উদ্ভিদের সর্বোত্তম বৃদ্ধির জন্য ও আদর্শ পরিবেশ তৈরি করতে অবশ্যই মাটিতে এদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে হবে।

উদ্ভিদের বৃদ্ধির জন্য প্রতিটি প্রাথমিক পুষ্টি প্রয়োজনীয়; গাছের বৃদ্ধি, বিকাশ এবং প্রজননে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

উদ্ভিদে নাইট্রোজেনের ভূমিকা

নাইট্রোজেন প্রয়োজনীয় অনেকগুলি প্রক্রিয়ার জন্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। বিশেষত, নাইট্রোজেন ক্লোরোফিলের জন্য অত্যাবশ্যক, যা উদ্ভিদকে সালোকসংশ্লেষণ করতে সক্ষম করে (এই প্রক্রিয়াটি দ্বারা উদ্ভিদের সবুজ অংশ সূর্যের আলোতে কার্বন ডাই অক্সাইড এবং পানি থেকে শর্করা উৎপাদন করতে পারে)। প্রোটিনের ভিত্তি হিসেবেও নাইট্রোজেন অ্যামিনো অ্যাসিডের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। নাইট্রোজেন উদ্ভিদের সঞ্চয় এবং শক্তি ব্যবহারের জন্যে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে।

আরও পড়ুনঃ অযুত সম্ভাবনার ভিটামিন সমৃদ্ধ ধান ‘গোল্ডেন রাইস’

দানাদার ফসল উৎপাদনের একটি সমীক্ষায় নাইট্রোজেন সার বাদ দেওয়ায় ফসলে কীরূপ প্রভাব ফেলে, তা দেখানো দেখেছিল। গবেষণায় অনুমান করা হয়েছে যে নাইট্রোজেন ছাড়াই, ভুট্টার গড় ফলন হ্রাস পেয়েছে ৪১ ভাগ, চাল ৩৭.৩৭ ভাগ, বার্লি ১৯ ভাগ এবং গম  ১৬ ভাগ।

নাইট্রোজেনের উৎস

যদিও নাইট্রোজেনকে বায়ুমণ্ডল থেকে গ্রহণ করে ব্যবহারযোগ্য পুষ্টিতে রূপান্তরিত করা যায় এবং প্রাকৃতিকভাবে মাটিতে উপস্থিত হতে পারে তবে উদ্ভিদে যাতে তাদের সর্বোচ্চ পরিমাণে উপস্থিতি থাকে তা নিশ্চিত করার জন্য প্রায় সবসময় নাইট্রোজেনকে পরিপূরক করা বাঞ্ছনীয়। নিম্নলিখিত উপাদানগুলি নাইট্রোজেনের উৎস হিসাবে NPK মিশ্রণগুলিতে অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারেঃ

NPK মিশ্রণগুলিতে নাইট্রোজেনের অজৈব উৎস

  • ইউরিয়া
  • ইউরিয়া অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট
  • অ্যামোনিয়া

NPK মিশ্রণগুলিতে নাইট্রোজেনের জৈব উৎস

  • গোবর সার
  • কম্পোস্ট
  • শুকনো রক্তের গুড়ো বা ব্লাড মিল
  • গবাদি পাখির শুকনো পালকের গুড়ো

ফসফরাস

ফসফরাস উদ্ভিদের কাঠামোগত শক্তি, ফসলের গুণমান রক্ষা, বীজ উৎপাদনসহ সুস্থ উদ্ভিদের বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয় ভূমিকা পালন করে। ফসফরাস শিকড় বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করে, ফুল বিকাশে সাহায্য করে এবং ডিএনএর একটি গুরুত্বপূর্ণ মৌল।

আরও পড়ুনঃ রাসায়নিক সার ও কীটনাশকের পরিবর্তে কাজ করবে ট্রাইকোডার্মা ছত্রাক

ফসফরাসের কারণে সৌরশক্তিকে উদ্ভিদের জন্যে সর্বোচ্চ পরিমাণে ব্যবহারযোগ্য করতেও অনেকাংশে সম্ভব।

ফসফরাসের উৎস

নাইট্রোজেনের মতো, NPK সারে ফসফরাস জৈব এবং অজৈব উভয় উৎস থেকেই আসতে পারেঃ

NPK মিশ্রিত ফসফরাসের সাধারণ অজৈব উৎস

অজৈব ফসফরাসের প্রাথমিক উৎস হল ফসফেটের শিলা। ফসফেট শিলা সরাসরি মাটিতে প্রয়োগ করা যেতে পারে তবে উদ্ভিদ গ্রহণের জন্য সহজলভ্যভাবে প্রক্রিয়াজাতকরণ করা হলে এটি আরও কার্যকর হয়।

NPK মিশ্রিত ফসফরাসের সাধারণ জৈব উৎস

  • গোবর সার
  • কম্পোস্ট
  • বায়োসলিড
  • ব্লাড মিল
  • হাড়ের গুড়ো

Agriexpo

পটাশিয়াম

পটাশিয়াম উদ্ভিদের বৃদ্ধি এবং বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। পটাশিয়াম সাধারণত আকার, আকৃতি, রঙ এবং এমনকি স্বাদের মতো অনেকগুলি বৈশিষ্ট্যগুলির সাথে সম্পর্কিত। পটাশিয়ামের গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্যে এটিকে প্রায়শই “Quality Element” হিসাবে উল্লেখ করা হয়।

পটাশিয়ামের অভাবে গাছপালার বৃদ্ধি কমে যায় এবং ফলন উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পায়।

পটাশিয়ামের উৎস

জৈব এবং অজৈব উভয়ই উৎস থেকেই পটাশিয়াম পাওয়া যায়ঃ

NPK মিশ্রণগুলিতে পটাশিয়ামের সাধারণ অজৈব উৎস

NPK সার ব্যবহারের জন্য পটাশিয়ামের প্রাথমিক অজৈব উৎস হল পটাশ। ফসফেট শিলার মতো পটাশ সারা বিশ্বে মাটি খননেই পাওয়া যায় এবং পরিশোধিত পণ্য হিসাবে প্রক্রিয়াজাত করা হয়। পটাশিয়াম এর সালফেট যৌগ, ল্যাংবেইনাইট এবং গ্রানাইটের গুড়ো থেকেও আসতে পারে।

NPK মিশ্রণগুলিতে পটাশিয়ামের সাধারণ জৈব উৎস

  • গোবর
  • কম্পোস্ট
  • কাঠের ছাই

NPK সার উৎপাদন

NPK সার তরল, বায়বীয় এবং দানাদার আকারে পাওয়া যায়, দানাদার সর্বাধিক পরিচিত ও বহুল ব্যবহৃত।

দানাদার NPK সার উৎপাদন করার জন্য অনেকগুলি পদ্ধতি বিদ্যমান। পুষ্টির অনুপাত বা গ্রেড তৈরি করতে পৃথক উপাদানগুলো আলাদা আলাদাভাবে উৎপাদিত করে নির্দিষ্ট ফর্মুলেশনে মিশ্রিত করতে হবে। অথবা, প্রতিটি দানায় পছন্দসই অনুপাতে যুক্ত করে উৎপাদিত হতে পারে। দানাদার NPK সার উৎপাদনের সর্বাধিক সাধারণ পদ্ধতির মধ্যে রয়েছেঃ

  • পাইপ চুল্লি গ্রানুলেশন সিস্টেম
  • ড্রাম গ্রানুলেশন সিস্টেম
  • মিক্সার-ড্রায়ার গ্রানুলেশন সিস্টেম
  • ডিস্ক পেলিটাইজিং সিস্টেম
  • স্পেরোডাইজার গ্রানুলেশন সিস্টেম
  • প্রিলিং সিস্টেম

NPK সার মূলত তিনটি প্রাথমিক পুষ্টির সমন্বয়ে গঠিত হয়, প্রক্রিয়াকরণে মাধ্যমে অন্যান্য মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টগুলিকেও মিশ্রণে যুক্ত করতে দেওয়া যায়। উদাহরণস্বরূপ, অ্যাসিড বৃষ্টি আইনের ফলে সালফার ঘাটতিযুক্ত মাটির প্রতিক্রিয়া হিসাবে NPK জনপ্রিয়তা অর্জন করে চলেছে।

কোনো এলাকার মাটিতে নির্দিষ্ট পুষ্টি ঘাটতি দূরীকরণে বিশেষ কোনো ম্যাক্রো উপাদান দিয়ে তৈরি মিক্সড ফার্টিলাইজারও খুবই জনপ্রিয়।

Facebook Comments