হাইড্রোপনিকস বাগানঃ ঘরে বসেই যে আটটি গাছ পানির জারে চাষ করতে পারবেন | Greeniculture

হাইড্রোপনিকস হল চিরাচরিত মাটিতে চাষাবাদ বাদ দিয়ে পুষ্টি উপাদান সমৃদ্ধ পানির মিশ্রণে চাষাবাদ। হাইড্রোপনিকস পদ্ধতিতে উৎপাদিত খাদ্য খেতে অপেক্ষাকৃত সুস্বাদু এবং পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ। স্বল্প জায়গায় বেশি ফসল ফলানো যায়। তাছাড়া এ পদ্ধতিতে খরচও কম।

.

প্রথমত, এমন একটি কন্টেইনার বাছাই করতে হবে যেটি দিয়ে সহজেই পানি উপচে পড়বে না। এজন্যে বিশেষ বয়াম বা কন্টেইনার ব্যবহার করা যেতে পারে, আচার বা পশ জ্যুস বারে ব্যবহৃত জার ব্যবহার করুন।

Credit: Gardholic

এবার পানি দিয়ে ভর্তি করুন বয়ামটিতে। এজন্যে ট্যাপ থেকে সরাসরি পানি না নেওয়াই ভাল। এসব পানিতে ক্লোরিন বেশি থাকে বিধায় গাছ বাঁচতে পারে না। পারলে বৃষ্টির পানি সংগ্রহ করে রাখুন। এখন যেহেতু বর্ষা চলছে। বৃষ্টির পানি পাওয়া খুব একটা কঠিন নয়। এছাড়াও এই পানিতে গাছ খুব তর‍তাজা থাকে। একোয়াপনিক্স নিয়ে আরও জানুন।

সতর্কতা!

কিছু উদ্ভিদ বা গাছ আছে যারা নতুন পরিবেশে খাপ খাইয়ে নিতে একটু সময় নেয়। সাধারণত ২-৬ সপ্তাহের মতো সময় লাগতে পারে।

শেষ কথা

যে উদ্ভিদ বা গাছটি একোয়াপনিক্স এর জন্যে ব্যবহার করবেন, সেটির সামান্য কিছু শেকড় বেরুলেই হবে।

টমেটো

টমেটো বর্তমানে খুব জনপ্রিয় হাইড্রোপনিক্স উদ্ভিদ। বাসাবাড়িতে ঘরের ভিতরেই উপযুক্ত মিডিয়াম ও আলোর ব্যবস্থা করলে খুব কম জায়গায় বেশ ভাল ফলন পাওয়া যায়। অবশ্যই এ ক্ষেত্রে মাটির উপস্থিতিতে চারা তুলে এনে একোয়াপনিক্স মাধ্যমে বসাতে হবে। টমেটোর চারা পানিতে অঙ্কুরোদোগম হয় না।

পুদিনা

পুদিনা অনেক গুণসম্পন্ন ঔষধি গাছ। হাইড্রোপনিক্সের মাধ্যমে খুব সহজেই ঘরেই প্রতিদিন পুদিনা পাতা সংগ্রহ করতে পারবেন। পুদিনার একটা ছোট্ট ডাল বা পাতা কেটে ফেলে রাখুন। পুদিনা জন্মাতে বিশেষ কোনো যত্নের প্রয়োজন নেই।

Credit: Boys' Life magazine

তুলসী

তুলসী যথেষ্ট পরিমাণ আলো ও উষ্ণতা পেলে আপনার ঘরেই স্বাচ্ছন্দ্য ভাবে বেড়ে উঠতে পারে। হাইড্রোপনিক্সে চাষ করা তুলসী গাছ কুঁড়ি ফোটার আগেই কেটে ফেলবেন, এতে আপনার তুলসী গাছটি অনেকদিন টিকবে।

থাইম

আমরা রান্নায় সুগন্ধ বৃদ্ধির জন্যে এর পাতা ব্যবহার করি। এখন ঘরে বসেই হাইড্রোপনিকসের মাধ্যমে এই ঔষধিগুণসম্পন্ন গাছটি চাষ করতে পারেন। খুবই কচি থাইম গাছ হাইড্রোপনিকসে চাষ করতে হবে। এদের রঙ যখন হালকা সবুজ থাকে। বয়স্ক গাছের শাখা-প্রশাখা শক্ত হয়ে যায়। কুঁড়ি মূলত মে ও জুলাই মাসের পরে ফোটে। গাছের ডাল বা অংশ থেকে চারা করতে মাতৃ গাছ থেকে কাণ্ড কেটেই সাথে সাথে পানির পাত্রে বসিয়ে দিতে হবে। নইলে কান্ড শক্ত হয়ে অনুপযোগী হয়ে যাবে। রাম্বুটান চাষ সম্বন্ধে জানুন।

পুঁইশাক

জ্বি হ্যা, আপনি হাইড্রোপনিকসে পুঁইশাকও চাষ করতে পারেন। এটি বাংলাদেশের খুবই পরিচিত শাক। আলাদা পাত্রে বীজ থেকে চারা তৈরি করে হাইড্রোপনিকস ফিল্ডে চারা স্থানান্তর করতে হয়।

মরিচ

শখের বাগানীদের ছাদে, বারান্দায় মরিচের একটা দুইটা গাছ থাকাই স্বাভাবিক। টমেটোর মতোই কচি চারা গাছ হাইড্রোপনিকসের মাধ্যমেও চাষ করতে পারেন।

শসা

গরমে শসা খুবই জনপ্রিয় সবজি। এখেন হাইড্রোপনিক্স মিডিয়ামে শসাও খুব সহজে চাষ করা সম্ভব। ঝোপালো জাতের শসা গাছ হাইড্রোপনিক্সের জন্যে শ্রেয়। লতানো গাছ না করাই ভাল। পরবর্তীতে লতানো গাছ হয়ত আপনার বাসার দেওয়াল বেয়ে বেয়ে উঠে যাচ্ছে। তো আগে থেকেই জাত নির্বাচনে সতর্ক থাকুন।

রোজমেরি

নার্সারিগুলোতে রোজমেরি খুবই পরিচিত একটি গুল্ম। এর টিম্বার আকৃতির কান্ড হাইড্রোপনিকস হিসেবে বেশ টেকসই। শীতের পর রোজমেরি গাছ থেকে কাণ্ড সংগ্রহ করা সবচেয়ে শ্রেয়। এইসময়ে কচি চারাগাছ দ্রুত বাড়তে পারে। রোজমেরি বাসায় রাখার জন্যে খুবই জনপ্রিয় গাছ।

Facebook Comments